Fri. Dec 4th, 2020

Dakter Achen

Forget Medicine, GO With Nature

স্মৃতিশক্তি ভালো রাখার কিছু সহজ উপায়

1 min read

বাইরে কাজ আছে, বাড়ি থেকে বেরোতে হবে। বাড়ি থেকে বেরিয়ে আপনি যথারীতি দরজা বন্ধ করলেন। তালার চাবি পকেটে রাখতে গিয়ে খেয়াল হলো পকেটে কিছু একটা নেই।

তারমানে প্রয়োজনীয় কোন একটি জিনিস ভুল করে বাড়ির ভেতর ফেলে এসেছেন। “কি ফেলে এসেছি?” কিছুক্ষণ পর মনে পড়লো মোবাইল ভুল করে ফেলে আসা হয়ছে। মাঝেমধ্যে এমন ভুল হতেই পারে।

যদি প্রায় সময় এমনটি দেখা যায় তবে ভেতরে ভেতরে হতাশার কারণ তৈরী হতে পারে।

যদি আপনার মনে হয় যে আপনার কোন কিছুই মনে থাকছেনা সবকিছুই সহজে ভুলে যাচ্ছেন তবে মনে রাখবেন সময় এসেছে মস্তিষ্ককে জাগ্রত করার।

কম্পিউটারের সমস্ত ডাটা যেমন তার মেমোরিতে জমা থাকে তেমনি মানবদেহের মেমোরি হচ্ছে তার মস্তিষ্ক কিংবা ব্রেইন। আমাদের আজকের আর্টিকেলটি সাজানো হয়েছে মস্তিষ্ককে ঘড়ির কাঁটার মতো চলমান রাখবে তেমন সহজ কিছু উপায় নিয়ে। চলুন জেনে নেওয়া যাক উপায়সমূহঃ

দৈনন্দিন কাজকর্মের সময় হাত ব্যবহারে অদল-বদলঃ

সাধারণত দেখা যায়, আমাদের কাজের ক্ষেত্রে একটি হাতই বেশী প্রাধান্য পায় এবং আমরা বেশিরভাগ সময় এটি ব্যবহার করি।  তবে কখনো কখনো এটি পরিবর্তন করার চেষ্টা করুন!  আমরা যে হাতে কাজে অভ্যস্ত তার বিপরীত হাত ব্যবহার করা মস্তিষ্কের স্নায়ু সংযোগকে শক্তিশালী করে তোলে।

দাঁত ব্রাশ করার সময়, বাসন ধোয়া, লেখার সময়, পরিষ্কার করার সময় আপনি এটি করতে পারেন। প্রথমবার আপনার কাছে বেশ কঠিন মনে হতে পারে

তবে ধীরে ধীরে আপনি এটিতে অভ্যস্ত হয়ে যাবেন এবং এটি আপনার মস্তিষ্কের জন্য হবে ভালো একটি অনুশীলন।

জোরে জোরে বই পড়ুনঃ

জোরে পড়া আপনার স্মৃতিশক্তি বাড়িয়ে তুলতে পারে! নিজে নিজে কথা বলা ও শোনা মস্তিষ্কের তথ্য সংরক্ষণে সহায়তা করে। আপনি আপনার বন্ধু বা পরিবারের ছোট সদস্যদের সাথে এই অনুশীলনটি অনুশীলন করতে পারেন। আপনি যদি এটি করতে না পারেন তবে অডিও বুকের সহায়তা নিতে পারেন। এধরনের রিডিং কল্পনা করতে সাহায্য করে ফলে মস্তিষ্কের অন্যান্য অঞ্চলগুলো কাজ শুরু করে।

ঘুম থেকে উঠে ভ্যানিলার গন্ধ নিনঃ

memory increase tips

আমরা অনেকেই ঘুম থেকে উঠে ফ্রেশ কফি পানে অভ্যস্ত।  কখনো কখনো এই নিয়মিত রুটিনের পরিবর্তে নতুন কিছু করার চেষ্টা করুন। এটি হতে পারে ভ্যানিলা বা গোলাপের গন্ধ।

এক সপ্তাহের জন্য আপনার প্রিয় সুবাসের একটি নির্যাস রাখুন এবং সকালে ঘুম থেকে উঠলে এটি খুলুন। নতুন কোন গন্ধ স্নায়বিক পথ সক্রিয় করতে সহায়তা করে।

প্রতিদিনের রুটিনের মধ্যভাগে ইয়ারপ্লাগ পরিধানঃ

দিনে অন্তত কিছু সময়ের জন্য কানকে বিশ্রাম নিতে দিন দেখবেন মস্তিষ্ক আপনা আপনি আপনার উপর সন্তুষ্ট থাকবে। ইয়ারপ্লাগ পরে আপনার প্রধান সংবেদনশীল রুটটিকে অবরুদ্ধ করুন এবং কফি পান করার মতো সাধারণ কাজগুলি সম্পাদনের জন্য অন্যান্য উপায়গুলি ব্যবহার করুন।

উদাহরণস্বরূপ, আপনি যখন পরিবারের সাথে ব্রেকফাস্ট করবেন তখন এটি ট্রাই করতে পারেন।  শব্দ ছাড়া বিশ্ব,নতুন অভিজ্ঞতা!  তবে আপনার প্রিয়জনদের সতর্ক করতে ভুলবেন না যে আজ আপনি নতুন একটি  কৌশল চেষ্টা করতে চলেছেন।

হাত মুষ্টিবদ্ধ করাঃ

US psychologists দের মতে, ৯০ সেকেন্ডের জন্য

ডান ও বাম হাত ক্লিচিং স্মৃতি গঠনে সহায়তা করে।  ৫০ জন প্রাপ্ত বয়স্কদের উপর গবেষণায় দেখা গেছে ক্লিচিং এর পর তারা পূর্বের তুলনায় বেশী শব্দ মনে রাখতে সক্ষম হচ্ছে।

শব্দের ছবি এবং ধাঁধা তৈরি করুনঃ

আপনার পছন্দ মতো যে কোনও শব্দ নিন এবং আপনার মাথায় শব্দের বানানটি কল্পনা শুরু করুন।  আপনি এটি শেষ করার পরে, অন্য কোনও শব্দের কথা ভাবেন যা একই দুটি বর্ণ দিয়ে শুরু হয় বা শেষ হয়।  এই ধরণের ধাঁধা আপনার মস্তিষ্ককে সক্রিয় এবং তীক্ষ্ণ রাখবে।

আপনার উত্তর কমেন্ট করে অথবা FACEBOOK পেজ এ জানাতে পারেন।

তাছাড়া, খাওয়ার সময় চপস্টিকের ব্যবহার, ড্রাইভিং এর সময় জানালা খোলা রাখা, সপ্তাহে তিনবার হার্ট্ররেট কাউন্ট করা, চারপাশের ছোটখাটো জিনিস খেয়াল করা এসব কিছু আমাদের স্মৃতিশক্তি ভালো রাখার জন্য সহায়ক।

Writer Courtesy: Puja Dhar

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *