Fri. Dec 4th, 2020

Dakter Achen

Forget Medicine, GO With Nature

৭টি ঘরোয়া জিনিস ব্যাবহার করে কিভাবে ত্বক পরিষ্কার রাখবেন

1 min read

ত্বক এমন একটি জিনিস যা মানুষ এর সবচেয়ে প্রিয়। এই ত্বক রক্ষা করার জন্যে,সুন্দর করার জন্যে মানুষ কি না করে? প্লাস্টিক সার্জারী করে ত্বক টান টান রাখার জন্যে।

কত নানা ধরনের ঔষধ খায়।  কত ডে ক্রিম, নাইট ক্রিম, সান্স ক্রিম, লোশন, বডি ওয়েল, সাবান ইত্যাদি ব্যবহার করে।

how to look fair

কিন্তু এই সব ক্যামিকেল দিনের পর দিন ব্যবহার করে মানুষ কত শত রোগ ডেকে আনছে তা হয়তো জানে না। অনেকে তো আবার জেনে ও এসব ব্যবহার করে সাময়িক সৌন্দর্যের জন্যে।

কম বয়সে এসব ক্যামিকেল যুক্ত কৃত্রিম সৌন্দর্য বর্ধক জিনিষ ব্যবহারে বয়স ২৬-২৭ আসলেই আজকাল মানুষ এর চামড়া নষ্ট হয়ে যায়। বিশেষ করে মেয়েদের অতি উচ্চ মাত্রার মেকাপ ব্যবহার এর ফলে।

চাইলে ঘরে বসেও ত্বক এর যত্ন নেওয়া যায় কম খরচে, মোটকথা ঘরের নিত্য ব্যবহার্য  জিনিষ দিয়েই।

চলুন যেনে নেই কিভাবে কম খরচে ৭উপায়ে ত্বক এর যত্ন ঘরে বসে নিবেন।

১.ভাতের মাড়: ভাতের মাড় আমরা সবাই ফেলে দেই।  অনেকেও হয়তো খেয়ে ও থাকেন। গোসল এ যাবার আধা ঘন্টা আগে ভাতের মাড় মুখে দিন। এতে মুখ সফট হয় এবং পরিষ্কার হয়।

বাইরে থেকে ঘরে ফিরে এসে চাইলে ভাতের মাড় মুখে দিয়ে তারপর মুখ ধুতে পারেন। ভাত এর মাড় মুখের ক্ষত ও পূরণ করে। চাইলে প্রতিদিন ব্যবহার করা যাবে। অবশ্যই মাড় সম্পূর্ণ ঠান্ডা করে।

২.কলার খোসা: কলা খেয়ে তার খোসা ফেলে না দিয়ে মুখে ৫ মিনিট ম্যাসাজ করুন। এতে মুখ সফট হয়। চামড়ার বলিরেখা দূর হয়।  ম্যাসাজ এর ১০মিনিট পর ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন।

৩. এলোভেরা: এলোভেরা সবার মুখে মানায় না। কারো আবার এলোভেরা দেওয়ার সাথে সাথেই ত্বক চুল্কায়। কিন্তু আপনি যদি এলোভেরা জেল নিয়ে আধা ঘন্টা পানিতে ভিজিয়ে রাখেন দেখবেন পানিতে হলুদ ভাব এসেছে।

এই হলুদ জেল এর কারণেই এলার্জির সমস্যা করে। তারপর এই এলোভেরা হাড়িতে দিয়ে গলিয়ে নিন অল্প আচে,এরপর এটি ঠান্ডা করে ত্বকে লাগিয়ে ম্যাসাজ করেন অবশ্যই ভালো ফল পাবেন। চাইলে একটু কালিজিরা ও মিশাতে পারেন।

৪. লেবু: লেবু ২-৩ ইঞ্চি টুকরা করে বরফ এর ট্রে তে দিয়ে এতে পানি দিন।এবং তা ফ্রিজে রাখুন। বাইরে রোদ থেকে ফিরে এই বরফ এর কিউব বের করে তা দিয়ে শরীল এর যে অংশ রোদে পুড়ে সেই অংশ এ ম্যাসাজ করুন। ভালো ফল পাবেন।

৫. ফ্রুটস: যেকোনো ধরনের ফল খেলে চেষ্টা করবেন তা মুখে একটু লাগাতে এতে করে যে ফলের যে ভিটামিন বা পুষ্টি গুণ তা আপনি পেয়ে যাবেন।

৬.পানি: প্রতিদিন ৬-৮ লিটার পানি পান করার চেষ্টা করবেন। আর চেষ্টা করবেন নরমাল টেম্পারেচার এর পানি ব্যবহার করতে। অনেকে ঠান্ডার সমস্যার জন্যে কুসুম গরম পানিও ব্যবহার করেন যা শরীরের জন্যে ক্ষতিকর।আর যাদের বাসায় পানির সমস্যা আছে তারা চাইলে ফিটকারী দিয়ে পানি ব্যবহার করতে পারেন বা বালতিতে জমিয়ে রেখে জমানো পানি ব্যবহার করতে পারেন।

৭. অভ্যাস: পরিমিত ঘুমান।  কমপক্ষে ও ৬ ঘন্টা ঘুমান। শরীরের উপর চাপ কম দিন। সুষম খাবার অভ্যাস ঘরে তুলুন।  চেষ্টা করবেন ফরমালিন ছাড়া খাবার খেতে। বাজার থেকে কিনা যেকোনো সবজি বা ফল মূল কুসুম গরম পানিতে এক চিমটি লবণ দিয়ে ভিজিয়ে রাখুন। এতে করে ফরমালিন অনেক টাই দূর করা যায়।

সবশেষে  বলবো নিজের শরীর এর যত্ন নিজে নিন। প্রতিদিন গোসল করুন। ব্যায়াম করুন প্রতিদিন। অফিসে বা নিজের কাজের জায়গায় হেটে যাওয়ার চেষ্টা করুন। অতি রোদে ছাতা ব্যবহার করুন। পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকুন। সুন্দর হওয়ার জন্যে ও ত্বকের মলিনতা রক্ষার জন্যে কৃত্রিম জিনিশ ব্যবহার না করে প্রাকৃতিক জিনিশ ব্যবহার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *