Fri. Dec 4th, 2020

Dakter Achen

Forget Medicine, GO With Nature

হার্ট ভালো রাখবে যে ১৪ টি খাবার

1 min read

একটি গাড়ি বাইরে থেকে দেখতে যতটাই চকচকে হোক না কেন যদি তার ইঞ্জিন ঠিক না থাকে। তবে যেকোন সময় ঘটে যেতে পারে মারাত্মক কোন দূর্ঘটনা।  তেমনি হার্ট ভালো না থাকলে আপনি কখনোই পুরোপুরি ফিট থাকতে পারবেন না।

heart health

হার্ট অ্যাটাক বর্তমানে সবচেয়ে ভয়ানক “কিলার ডিসিজ” নামে পরিচিত। প্রতি বছর প্রায় ৬ মিলিয়ন লোক হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হয়। তার মধ্যে ৩ মিলিয়ন লোক হার্ট অ্যাটাকের ৫ বছরের মধ্যে মারা যায়। আমাদের আজকের আর্টিকেলটি সাজানো হয়েছে হার্টের জন্য উপকারী এমন কিছু খাদ্য তালিকা নিয়ে। চলুন দেখে নেয়া যাক খাবার সমূহের তালিকাঃ

শিম,ডাল ও ছোলাঃ

শিম, ডাল জাতীয় খাবার শরীর থেকে উল্লেখযোগ্য হারে অতিরিক্ত কোলেস্টেরল দূর করে। তাছাড়া, আমাদের হার্ট ও দেহের অন্যান্য প্রয়োজনীয় উপাদান যেমনঃ ফাইবার, প্রোটিন, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সব এই খাবার সমূহে বিদ্যমান।

 

জামঃ

আপনি যদি আপনার শরীরকে ফাইবার, ফলিক এসিড, ক্যালসিয়াম, আয়রন, ভিটামিন-এ, ভিটামিন-সি এর মতো প্রয়োজনীয় উপাদান গুলো দেতে চান তবে আপনাকে অবশ্যই খাদ্য তালিকায় রাখতে হবে জাম।

ব্রোকলিঃ

সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে, নিয়মিত সিদ্ধ ব্রোকলি খেকে কোলেস্টেরল লেভেল নিয়ন্ত্রণে থাকে।

how to make healthy heart

ডার্ক চকলেটঃ

ওয়ান অফ মাই ফেব থিং।  ডার্ক চকলেট এমন একটি খাবার যেটি আপনাকে স্বাদের পাশাপাশি সরবারাহ করবে প্রয়োজনীয় কিছু উপাদান। খাদ্য বিশষজ্ঞদের মতে, ডার্ক চকলেট ধমনীর সংকোচন রোধ করে রক্ত প্রবাহ ঠিক রাখে।

coffee makes heart healthy

কফিঃ

কফি হচ্ছে রোজকার উপকারী বন্ধুর মতো। সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গেছে রোজ কফি পান স্ট্রোক ও হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমায়। (শুনেছিলাম শাহরুখ খান নাকি প্রতিদিন ২৫ কাপ ব্ল্যাক কফি পান করেন।) এটা suggested নয়। 

মাছঃ

মাছ Omega- 3 ও প্রোটিনের দারুণ এক উৎস। যাদের হার্টের সমস্যা আছে তাদের omega-3 ভীষণ ভাবে প্রয়োজন হয় যেটি আপনি পাবেন মাছ থেকে।আমেরিকান হার্ট এসোসিয়েশনের মতে আমাদের সপ্তাহে ৩.৫ আউন্স মাছ খাওয়া উচিত।

green-tea-for-health (1)

গ্রীন টিঃ

কোলেস্টেরল হচ্ছে হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের প্রধান যোগানদাতা। ২০১১ তে একটি সিস্টেম্যাটিক রিভিউতে দেখানো হয়েছে গ্রীন টি শরীরের কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে।

২০১৪ সালে অন্য একটি রিভিউতে দেখানো হয়েছে, গ্রীন টি হাই ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণে রাখতেও উপকারী।

 

বাদামঃ

অ্যালমন্ড, চিনাবাদাম, হ্যাজেল নাট, ওয়াল নাট হচ্ছে স্বাস্থ্যকর কিছু বাদাম যা থেকে আপনি পাবেন ফাইবার, প্রোটিন, মিনারেল ভিটামিন ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। মাছের মতো ওয়ালনাটেও রয়েছে Omega-3।

 

যকৃৎঃ

মাংস জাতীয় খাবারের মধ্যে যকৃৎ হচ্ছে সবচেয়ে বেশি নিউট্রেশন প্রদানকারী খাদ্য। লিভারে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার, ফলিক এসিড, আইরন, কপার, জিংক, ক্রোমিয়াম। হার্ট সুস্থ রাখা ছাড়াও লিভার রক্তে হিমোগ্লোবিন সরবারাহে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

ওটমিলঃ

২০০৮ সালের এক গবেষণায় দেখা গেছে ওটমিল শরীরের কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে তাও আবার কোন রকম পার্শ্বপতিক্রিয়া ছাড়া। সলবার ফাইবার থাকার কারণে এটি হার্টকে বিভিন্ন রকম রোগ থেকে মুক্ত রাখে।

শাকঃ

হার্টের সুস্থতার ধারাবাহিকতা বজায় রাখার জন্য প্রয়োজন ম্যাগনেসিয়াম। আর শাক হচ্ছে ম্যাগনেসিয়ানের দারুণ একটি উৎস। লাল শাক,পালন শাক, কঁচু শাক হার্টের পাশাপাশি চোখের জন্যও উপকারী।

 

টমেটোঃ

টমেটোতে প্রচুর পরিমাণ নিউট্রিয়েন্ট থাকে যা হার্ট কে ভালো রাখে। এই লাল ফলটি আপনাকে পটাসিয়াম, ফাইবার, ভিটামিন, ফলিক এসিড, কোলিনের মতো অন্যান্য উপাদানেরও যোগান দেবে। পটাসিয়াম হাঁড়কে মজবুত রাখার পাশাপাশি কিডনিকেও সুরক্ষিত রাখে।

 

সবুজ শাকসবজিঃ

সবুজ শাকসবজি হার্টের পাশাপাশি শরীরের সব অঙ্গ-প্রতঙ্গের জন্য উপকারী। এতে প্রয়োজনীয় সকল ভিটামিন মিনারেল বিদ্যমান থাকে। খাদ্য তালিকায় প্রতিদিন কিছু সবজি রাখার চেষ্টা করুন।

 

খাবারের পাশাপাশি হার্টকে ভালো রাখাতে হলে আরো কিছু বিষয়ের প্রতি খেয়াল রাখতে হবে। যেমনঃ

  1. ধুমপান ও অন্যান্য নেশাজাতীয় দ্রব্য বর্জন করুন।
  2. নিজেকে যতটা সম্ভব চিন্তামুক্ত রাখুন। অতিরিক্ত চিন্তা মনের উপর বিরূপ প্রভাব ফেলে।
  3. শরীরচর্চার অভ্যাস গড়ে তুলুন।
  4. ভ্রমণ করুন। এতে আপনার শরীর, মন উভয়ই ভালো থাকবে।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *